1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:৩১ অপরাহ্ন
শিরোনাম
নড়াইলে অস্ত্র মামলায় ১জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড নড়াইলে হত্যা মামলায় একজনের ফাঁসি ও অপরজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ইতালী আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবু তাহেরের মায়ের মৃত্যুতে হাসান ইকবালের শোক ষড়যন্ত্র করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের উন্নয়ন গুলো কোনভাবেই বন্ধ করতে পারবে না: হাসান ইকবাল নাগরপুরে মাস্ক না পরায় ৯ মামলায় ৭ হাজার ৬শত টাকা জরিমানা নাগরপুরে ৪ কেজি গাঁজাসহ গ্রেপ্তার ১ নাগরপুরে শিশু-কিশোরীদের মাঝে কম্বল বিতরণ নাগরপুরে একতা সাংস্কৃতিক উন্নয়ন সংস্থার শীতবস্ত্র বিতরণ শহীদ আসাদ গণতন্ত্রপ্রেমী মানুষের মাঝে স্মরণীয় হয়ে থাকবেন: হাসান ইকবাল  ঠাকুরগাঁওয়ে দৈনিক ভোরের দর্পন পত্রিকার ২১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী কেক কেটে পালন

রামগঞ্জে কাঞ্চনপুর ইউপির বিতর্কিত কার্ডগুলো পৌছলো ভুক্তভোগীদের হাতে

সংবাদ দাতার নাম
  • সময় : বুধবার, ২২ এপ্রিল, ২০২০
  • ৩৯৯ জন পড়েছেন

রামগঞ্জ,(লক্ষ্মীপুর)প্রতিনিধিঃ লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে ০১ নং কাঞ্চনপুর ইউনিয়নের পুর্ব শেখপুরা ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য লিটন ঢালির বিরুদ্ধে ১০ টাকা মুল্যের চাউলের কার্ড আটকে রাখার অভিযোগটি তদন্ত করেছে কাঞ্চনপুর ইউনিয়ন পরিষদ।

জানা যায়,সরকারের খাদ্যবান্ধব কর্মসুচির আওতাধীন কাঞ্চনপুর ইউপির পুর্ব শেখপুরা ওয়ার্ডের ১৪ টি কার্ডে অনিয়মের অভিযোগ উঠে ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে।এরই মধ্যে হাজী বাড়িতেই ১০ টি কার্ডের মধ্যে ০১ টি পরিবারে কামাল হোসেন,স্ত্রী রত্না ও মেয়ে ইসরাতের নামে ০৩ টি কার্ড, নুরুল ইসলাম ও স্ত্রী জাহানারা বেগমের পরিবারে একই ঘরে ২ টি কার্ডের চাউল তুলছেন।

এমতাবস্থায় ওই ওয়ার্ডের অনেক হতদরিদ্র পরিবার কার্ড না থাকায় চাউল পাচ্ছে না দেখে ইউপি মেম্বার লিটন ঢালি হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে চাউল তুলে দেন।ইউপি সদস্য লিটন ঢালি বলেন,আমি ওয়ার্ডের জনপ্রতিনিধি হওয়ায় লোকজন নানাবিধ সমস্যা নিয়ে আমার কাছে আসে।কয়েকজন অসহায় পরিবার চাউলের অভাবে রান্না করতে পারছে না শুনে আমি নিজ উদ্যোগে যাদের ঘরে ২/৩ টি করে কার্ড আছে সেখান থেকে ২/১ টি করে ১৪ টি কার্ডের চাউল কার্ড না থাকা গরিবদের চাউলের ব্যাবস্থা করে দেই।অনেকেই ভাবছেন প্রতি মাসে সরকার চাউল দিচ্ছেন তাই তারা আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়েছেন।তবে এটি শুধুই ভুল বুঝাবুঝি।আমি শুধু মানবিকতা বিবেচনা করে উক্ত কাজটি করেছি। ইউপি চেয়ারম্যান নাছির উদ্দীন খান বলেন,কার্ডধারীরা চাউল পাচ্ছে না এই ধরনের কোন অভিযোগ আমাকে জানায় নি,চাউল না পেলে সরাসরি আমাকে জানানো উচিত ছিল।

আমি বিস্তারিত জানতে পেরে বিতর্কিত সেই ১৪ টি কার্ড ইউপি সচিব ও চৌকিদারের মাধ্যমে কার্ডধারীদের হাতে পৌছে দেওয়ার ব্যাবস্থা করেছি ।

সংবাদটি আপনার সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরোও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিশেষ সংখ্যা