1. admin@protidinershomoy.com : admin :
  2. nasimriyad24@gmail.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  3. wp-configuser@config.com : James Rollner : James Rollner
সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১২:১৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
চালু হতে যাচ্ছে রাজশাহী-কলকাতা ট্রেন  আওয়ামী লীগ মানুষের কল্যাণে রাজনীতি করে- আব্দুল ওয়াদুদ দারা রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন সাংবাদিক মিলনের পিতার মৃত্যু বার্ষিকীতে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত কবি শাহ্ কামাল আহমদকে আন্তর্জাতিক সাহিত্য অ্যাওয়ার্ড প্রদান করায় সাহিত্য আড্ডা ও নৈশভোজ অনুষ্ঠিত রাজশাহীতে দশম আন্তর্জাতিক যোগ দিবস উদযাপন  রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক পরিষদ’র আত্মপ্রকাশ সমবায়ভিত্তিক কৃষি বিপ্লব গড়ে তুলতে হবে: প্রতিমন্ত্রী ওয়াদুদ দারা ঈদুল আজহা ত্যাগের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়: হাসান ইকবাল ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ইউসুফ আলী পিন্টু 

রাজশাহীতে মাষ্টার প্ল্যান ভঙ্গ করে বিপদজনক রাস্তা নির্মাণের অভিযোগ

সংবাদ দাতার নাম
  • সময় : সোমবার, ৮ জুন, ২০২০
  • ২১৩ জন পড়েছেন
সাগর নোমানী,রাজশাহী:
রাজশাহী নগরীর উন্নয়নে তৈরী হচ্ছে আলুপট্টি থেকে তালাইমারী পর্যন্ত মহাসড়ক। এই উন্নয়নে বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছেন মেয়র বুলবুলের আমলের প্রধান প্রকৌশলীর পিএ গোলাম হোসেন। এলাকাবাসীর অভিযোগ, নগরীতে মাষ্টার প্লান ভঙ্গ করে বিপদজনক রাস্তা তৈরীতে চাপ প্রয়োগ ও দেনদরবার করছেন এই অবসরপ্রাপ্ত বিএনপি আমলের সাবেক পিএ।
সোমবার (৮ জুন) সকাল ১০টার সময় এলাকারবাসীর পক্ষ থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তালাইমারী শহীদমিনার নিবাসী মো. শরিফুল ইসলাম।
তিনি বলেন, গত রবিবার (৩ জুন) নগরের  তালাইমারী থেকে আলুপট্টি পর্যন্ত সড়কের জমির রাস্তা প্রশস্তকরণে ২৪/২০১৬-২০১৭ নং এল. এ. কেস মূল অধীগ্রহনকৃত সম্পত্তির দখলমুক্তকরণের জন্য রাজশাহী জেলা প্রসাশকের নিকট একটি স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, নগরীর  তালাইমারি থেকে আলুপট্টি পর্যন্ত সড়ক এর জমির ২৪/২০১৬-২০১৭ নং এল. এ. কেস মূল অধীগ্রহন করা হয়েছে। উক্ত এল. এ. কেস মুলে অধিগ্রহণ করা অংশে সি পার্টে অবস্থিত তালাইমারী শহীদমিনারে মৃত নেকাব্বর শাহ ওরফে নেফার শেখের বাড়ীর অংশবিশেষ রয়েছে। যা বর্তমানে নেফার শেখের সন্তান গোলাম হোসেনের নামে রয়েছে। গোলাম হোসেন ছিলেন রাজশাহী সিটি কর্পোরশেনের প্রধান প্রকৌশলীর সাবেক পিএ। তিনি তার কর্মক্ষেত্রের ক্ষমতা দেখিয়ে  অধিগ্রহণকৃত তার বাড়ির অংশবিশেষ ভাঙতে দিবেন না মর্মে বলে বেড়াচ্ছেন।’
সূত্রে আরো উল্লেখ রয়েছে, ‘রাস্তা বাঁকা হলে হোক, কিন্তু রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের নিজস্ব লোক হিসেবে এটি তার অধিকার। পূর্বে রাজশাহী জেলা প্রশাসক, সিটি করপোরেশন এবং স্থানীয় আমিন রাস্তা মেপে তার বাড়ির সীমানা চিহ্নিত করে বুঝিয়ে দেওয়া হলেও তিনি তা এখন অস্বীকার করেছেন।’
এ দিকে বিক্ষুদ্ধ এলাকাবাসীর দাবী, ‘সরকার বাড়ি-ঘর ভেঙ্গে রাস্তার উন্নয়ন করছেন নগরবাসীর সুবিধার জন্য; কোনো বিশেষ ব্যক্তির সুবিধার দিকে তাকিয়ে রাস্তাটিতে বাঁক তৈরী করে মৃত্যুকুপ বানানোর জন্য নয়। তারা বলেন, রাসিকের সার্ভেয়ার এ বিষয়ে কথা বলার জন্য আসলেও তাদের অপমানিত করে বিতাড়িত করেন গোলাম হোসেন। সেক্ষেত্রে এখানে সরকারি অধিগ্রহণকৃত জায়গাটি দখল করে রাখা হয়েছে এবং সরকারী কাজে হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে। তাই, যত দ্রুত সম্ভব এই রাস্তাটি সঠিকভাবে প্রশস্তকরণের স্বার্থে রাসিক ও জেলা প্রশাসনের সম্বনয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক। এটি এলাকাবাসীর প্রাণের দাবী।’
এদিকে বাড়ির মালিক গোলাম হোসেনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তার পক্ষ থেকে তার সন্তান গোলাম খোরশিদ লিমন ফোন ধরেন। তিনি জানান, ‘সরকার তাদের জায়গা অধিগ্রহণ করেছে ২৩৪ শতাংশ। কিন্তু সেখানে প্রায় ৩৫০ শতাংশ জায়গা অধিগ্রহণ হিসেবে নিতে চাচ্ছে রাসিক। যা ১০০ শতাংশেরও বেশী জায়গা নিচ্ছে আর্থিকভাবে অধিগ্রহণ ছাড়াই। যা নিয়মের মধ্যে পড়ে না।’
তিনি আরো জানান, ‘এবিষয়ে রাসিক ও ডিসি অফিসে একটি করে অভিযোগ প্রদান করা হয়েছে। বিষয়টির নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত এ ব্যাপারে বাড়ি ভাঙ্গার কোনো প্রশ্ন আসে না।’
সরজমিনে পরিদর্শন করা রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সার্ভেয়ার লিটনের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তা সম্ভব হয়নি।
তবে এ বিষয়ে রাসিকের প্রধান প্রকৌশলী খন্দকার খায়রুল বাশার জানান, যেহেতু রাস্তা নির্মাণের জমিগুলো ডিসি অফিস কর্তৃক অধিগ্রহণকৃত এবং বিষয়টিতে যেহেতু এলাকাবাসী ও বাড়ীর মালিক উভয়ের অভিযোগ রয়েছে সেহেতু এখানে ডিসি অফিস, রাসিকের ও পিডাব্লিউডি-এর যৌথ সার্ভেয়ার দ্বারা ভূমির পূণরায় পরিমাপের প্রয়োজন রয়েছে। এছাড়াও বিষয়টি নিষ্পত্তি সম্ভব নয় বলে জানান রাসিক প্রধান প্রকৌশলী।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে রাজশাহী জেলা প্রশাসক হামিদুল হক বলেন, নগরীর উন্নয়নে আলুপট্টি থেকে তালাইমারী পর্যন্ত যে রাস্তাটি তৈরী হচ্ছে তাতে ডিসি অফিস থেকে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন জায়গা বুঝে নেবে। সেটি যদি তারা না বুঝে নেয় সেক্ষেত্রে সমস্যা হওয়ার-ই কথা। বিষয়টি জটিল, তাই কাগজাদি না দেখে এ বিষয়ে এখন বলা সম্ভব নয়। এলাকাবাসী ও বাড়ির মালিকের অভিযোগ আমলে রেখে সঠিক তথ্য প্রমাণ নিয়ে বিষয়টি নিষ্পত্তি করা হবে বলেও জানান তিনি।

সংবাদটি আপনার সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরোও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিশেষ সংখ্যা

%d bloggers like this: