1. admin@protidinershomoy.com : admin :
  2. nasimriyad24@gmail.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  3. wp-configuser@config.com : James Rollner : James Rollner
শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ০৫:৫৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম
বীরমুক্তিযোদ্ধা শফিউর রহমান শফির মুক্তির দাবীতে রাজশাহীতে বিক্ষোভ নিউইয়র্কে সিলেট দক্ষিণ সুরমাবাসীর’র বার্ষিক বনভোজন ও মিলনমেলা টিউলিপ সিদ্দিক যুক্তরাজ্যের নগর বিষয়ক মন্ত্রী হওয়ায় রসায়নবিদ আলহাজ্ব ডক্টর মোঃ জাফর ইকবালের অভিনন্দন টিউলিপ সিদ্দিক যুক্তরাজ্যের নগর বিষয়ক মন্ত্রী হওয়ায় হাসান ইকবালের অভিনন্দন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে-এমপি সুজন ঠাকুরগাঁওয়ে শ্বশান ঘাটের বন্ধ রাস্তা খুলে দিলেন এমপি সুজন চারঘাট প্রেসক্লাবের সভাপতিসহ তিন সদস্যকে অব্যাহতি ঠাকুরগাঁওয়ে ভারী বর্ষণে ভেঙে গেছে সড়ক, যাতায়াতে দু*র্ভোগ মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রশ্নে কোনো আপোষ নেই – সমবায় প্রতিমন্ত্রী রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডে পরীক্ষা মূল্যায়ন পদ্ধতি বিষয়ে প্রশিক্ষণ

১০০ কিলোমিটার দুরে পাতানো নিয়োগ পরীক্ষা,বাতিলের দাবী

সংবাদ দাতার নাম
  • সময় : শনিবার, ১৮ জুলাই, ২০২০
  • ২৪৫ জন পড়েছেন

(কয়রা প্রতিনিধি)
খুলনার কয়রা উপজেলার বেসপাড়া হায়াতুন্নেছা দাখিল মাদরাসায় নৈশ প্রহরী ও আয়া পদে নিয়োগ পরীক্ষা ‘পাতানো’ বলে অভিযোগ উঠেছে। ওই দুই পদে মাদরাসা ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির নিকটাত্মীয়কে
নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। যে কারনে অসচ্ছতার অভিযোগে নিয়োগ পরীক্ষা বাতিলের দাবী জানিয়েছেন অংশগ্রহনকারি প্রার্থীরা।
যে দুইজন নিয়োগ পেয়েছেন তারা হলেন, মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মারজন ঢালীর পুত্রবধূ রহিমা খাতুন ও নাতি
মাহফুজুর রহমান। নিয়োগ পরীক্ষায় আয়া পদে অংশ নিয়েছিলেন ফাতেমা খাতুন। তিনি
অভিযোগ করেন, মাদরাসা থেকে প্রায় একশ কিলোমিটার দুরে খুলনা শহরের একটি স্কুলে নিয়ে তাদেরকে নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নিতে বাধ্য করা হয়। করোনাকালিন সময়ে অনেকেই এত দুরে গিয়ে পরীক্ষায় অংশ নিতে অস্বীকৃতি জানায়। কিন্তু মাদরাসার সুপার ও সভাপতির
চাপাচাপিতে এক দিন আগে সেখানে যেতে হয়েছে। পরীক্ষার আগেই তারা জানতে পারেন সভাপতির পুত্রবধূ ও নাতিকে নিয়োগ দেওয়া হবে। সে কারনে শুরু থেকেই তারা এমন পাতানো পরীক্ষা বাতিলের দাবী জানিয়েছেন।
ইসমাইল হোসেন নামে এক নিয়োগ পরীক্ষার্থির অভিভাবক বলেন, এলাকায় ঝামেলা হতে পারে ভেবে খুলনা শহরে নিয়ে নিয়োগ পরীক্ষা
নেওয়া হয়েছে। দুই পদে ১৫ জন প্রার্থী অংশ নেয়। পরীক্ষা শুরুর এক ঘন্টা আগে সকল প্রার্থীর কাছ থেকে একটি রেজিষ্টার খাতায় স্বাক্ষর নিয়ে তাদেরকে মৌখিকভাবে কয়েকটি প্রশ্ন করে চলে যেতে বলা হয়। পরে
জানতে পারি দুটি পদেই সভাপতি আত্মীয়কে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তাৎক্ষনিকভাবে আমরা নিয়োগবোর্ডের সদস্য ডিজির প্রতিনিধির
কাছে পরীক্ষা বাতিলের জন্য অভিযোগ জানিয়েছি। মাদরাসা ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মারজন ঢালী বলেন, নিয়োগ
বোর্ডে আমিসহ আরও চার জন সদস্য ছিল। সকলের মতামতের ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। সেখানে আত্মীয় অনাত্মীয়ের বিষয় আসছে কেন জানতে চান তিনি।
মাদরাসার সুপার আব্দুল খালেক বলেন, স্বচ্ছতার জন্য এবং ডিজির প্রতিনিধির নির্দেশনা অনুযায়ি খুলনা শহরে নিয়োগ পরীক্ষা নেওয়া
হয়েছে। নিয়োগপ্রাপ্তরা সভপতির আত্মীয় কিনা জানি না। জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ রুহুল আমীন বলেন, মাদরাসার সুপার
ও সভাপাতি ঢাকায় গিয়ে ডিজির প্রতিনিধির সাথে আলোচনা করে নিয়োগ পরীক্ষার আয়োজন করেছেন। এখানে আমার কোন দায় নেই। তবে নিয়োগ পরীক্ষা স্বচ্ছ হয়েছে বলে দাবী করেন তিনি।

সংবাদটি আপনার সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরোও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিশেষ সংখ্যা

%d bloggers like this: