1. admin@protidinershomoy.com : admin :
  2. nasimriyad24@gmail.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
রবিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৯:৩৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে বাগমারার নির্বাচনী প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত ঠাকুরগাঁওয়ে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা পেলেন আ.লীগের মনোনয়ন জেলা রির্টানিং অফিসে অভিযোগ দিলেন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ঠাকুরগাঁওয়ে “১৯৭১ সেই সব দিন” চলচিত্র প্রদর্শনী বিষয়ে প্রেস ব্রিফিং আব্দুর রহমান দলের টিকিট নিয়ে নির্বাচনী এলাকায় প্রবেশ মুখে জনতার উচ্ছ্বাস নুসরাত এর পাশে ঠাকুরগাঁওয়ে মানবতার ফেলিওয়ালা পুলিশ সুপার উত্তম প্রসাদ পাঠক এমপির আওয়ামী লীগ হবে না, আওয়ামী লীগের এমপি হবে: আসাদ রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের কর্মকর্তাদের হাতে তুলে দেয়া হলো অভিধান ইন্ডিয়ান টেকনিক্যাল অ্যান্ড ইকোনমিক কোঅপারেশন দিবস উদযাপিত নেতাকর্মীদের ভালোবাসায় সিক্ত হলেন নৌকার মাঝি দারা আ.লীগের মনোনয়ন পাওয়ায় সুজনকে ফুলেল শুভেচ্ছা

আমন চারার সংকটে কুড়িগ্রামের কৃষকেরা

সংবাদ দাতার নাম
  • সময় : বুধবার, ৫ আগস্ট, ২০২০
  • ১৪১ জন পড়েছেন

কল্লোল রায়,কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামে আমন মৌসুমে রোপণের জন্য ধানের চারার সংকটে পড়েছেন কৃষকেরা। বন্যার পানি দীর্ঘদিন স্থায়ী থাকায় বীজতলা প্রস্তুত করা সম্ভব হয়নি।এর ফলে নদীর পাড়ের ও তার পাশের কয়েক কিলোমিটার এলাকার কৃষকদের এই সংকটে পড়তে হচ্ছে প্রতিবছর। সংকট কাটাতে দুরের এলাকা থেকে চারা কিনে এনে রোপণ করতে হচ্ছে তাদের।এজন্য প্রতিবছর আমন মৌসুমে ধান উৎপাদনের বাড়তি অর্থ গুনতে হচ্ছে তাদের।

উলিপুর উপজেলার তবকপুর ইউনিয়নের পাইকপাড়া গ্রামের কৃষক শাহাবুদ্দিন আলী। বীজতলার জন্য নিজের পর্যাপ্ত জমি থাকলেও বন্যায় ও জলাবদ্ধতায় ধানের চারা উৎপাদন করতে পারেননি তিনি। তাই চারার খোঁজে এসেছেন বাড়ি থেকে ১২ কিলোমিটার দুরে উলিপুর পৌরসভার রাজারামক্ষেত্রী গ্রামে। তিনি জানান, চলতি মৌসুমে ১৫ কাঠা জমি আবাদের জন্য ধানের চারা না থাকায় দুরের এলাকা থেকে চারা সংগ্রহ করতে হচ্ছে। এতে চারা পরিবহন সহ বাড়তি অর্থ দিয়ে চারা কেনায় লাভবান হওয়ার সুযোগ নেই বলেও জানান তিনি।একই এলাকার আরেকজন কৃষক শহিদুল ইসলাম, তিনিও এসেছে চারার খোঁজে। তিনি জানালেন, চলতি মৌসুমে ১ বিঘা জমিতে রোপণের জন্য ১ম দফায় ১ হাজার টাকার চারা কিনতে হলো।কিন্তু নিজে চারা উৎপাদন করলে এ খরচ ৮০ শতাংশ কমানো সম্ভব হতো বলে জানান তিনি। তার এলাকার প্রায় সকল কৃষকদের প্রতিবছরে চারা কিনতে হয় বলেও জানান তিনি।তিনি আরও জানান, আবার বন্যা হলে এই ফসলও নষ্ট হয়ে যাবে।এরপর আবার চারা কিনতে হবে। এঅবস্থায় উৎপাদন খরচও না ওঠার আশংকা করেন তিনি।

উলপুর পৌরসভার এক চারা বিক্রেতার সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রতি কেজি সর্বোচ্চ ৫৫ টাকা দরে ২কেজি ধান বীজ থেকে উৎপাদিত চারার মূল্য ২ হাজার টাকা।চারার মান ভালো হলে সর্বোচ্চ ৩০ শতাংশ জমিতে রোপণ করা সম্ভব।

এব্যাপারে নদী গবেষক এবং রেল-নৌ যোগাযোগ ও পরিবেশ উন্নয়ন গণকমিটির সাবেক সভাপতি, নাহিদ হাসান নলেজ বলেন,জেলার নদী অঞ্চল এবং আশাপাশের এলাকায় আমন দেরিতে রোপণ করা হয়, চারা সংগ্রহ করা হয় বাধের ভেতরের কাইম এলাকা থেকে। এবছর বাধের ভেতরের এলাকায় জলাবদ্ধতা হওয়ায় পর্যাপ্ত চারা উৎপাদন করা সম্ভব হয়নি। নদীর বাধ তুলে দিয়ে নদীগুলো পুনরুদ্ধার করলে জলাবদ্ধতা দুর হবে এবং ভবিষ্যতে এরকম সমস্যা সৃষ্টি হবেনা বলে বলে মনে করেন তিনি।

সংবাদটি আপনার সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরোও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিশেষ সংখ্যা

%d bloggers like this: