1. admin@protidinershomoy.com : admin :
  2. protidinershomoy@gmail.com : Showdip : Meherabul Islam সৌদিপ
  3. mamunshohag7300@gmail.com : মামুন সোহাগ : মামুন সোহাগ
  4. nasimriyad24@gmail.com : বার্তা সম্পাদক : বার্তা সম্পাদক
মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ০৮:১১ অপরাহ্ন
শিরোনাম
নাগরপুরে যৌন হয়রানি ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে প্রধান শিক্ষক বরখাস্ত ঠাকুরগাঁওয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে বৃদ্ধা মহিলা আত্মহত্যা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে ঠাকুরগাঁওয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ  আধুনিক পদ্ধতিতে ঢেঁকির মাধ্যমে চাল প্রস্তুত করছেন ঠাকুরগাঁওয়ের ওমর ফারুক রামগঞ্জের সন্তান কামরুজ্জামান শুভ বাংলাদেশ আ.লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক কেন্দ্রীয় উপ কমিটির সদস্য নির্বাচিত বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার জন্মদিন উপলক্ষে নাগরপুরে কেক কাটা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত নড়াইলে প্রথম নারী পুলিশ কর্মকর্তার যোগদান নড়াইলের নব নির্বাচিত পৌর মেয়র আঞ্জুমান আরার দায়িত্ব গ্রহন মানবতার সেবার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত জাপান আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জি. মোঃ জসীম উদ্দিন নাগরপুরে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তৃতীয় শ্রেণি কর্মচারী পরিষদের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন

কেমন কাটছে জবি শিক্ষার্থীদের হোম কোয়ারেন্টাইন

সংবাদ দাতার নাম
  • সময় : সোমবার, ৬ এপ্রিল, ২০২০
  • ২৯৯ জন পড়েছেন

মেহেরাবুল ইসলাম সৌদিপ, জবি প্রতিনিধিঃ
মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রভাবে হঠাৎ থমকে গেল এই শহর বলা যায় গোটা বিশ্ব এমনকি প্রাণ প্রিয় চিরচেনা ক্যাম্পাসটা ও। করোনা ভাইরাসের সৌজন্যে চলছে এখন পুরো পৃথিবী। অঘোষিত লক ডাউনে দেশ। সবাইকে ঘরে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ভয়াল করোনা ভাইরাসের কারণে হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে চাকুরিজীবী, বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষ তথা ক্রীড়াঙ্গন এবং সিনেমা জগতের ব্যক্তিত্বরা। সরকারি নির্দেশনায় বন্ধ রয়েছে সকল শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান, বন্ধ রয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) ও। লকডাউন হওয়ার ঠিক আগেই অচল হয়ে গিয়েছে গোটা শহর। গৃহবন্দি সকলে। তবে বাসায় থাকা ব্যাপারটা খুব একটা আপত্তি নেই।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

হোম কোয়ারেন্টাইন কি?
হোম কোয়ারানটাইনের বাংলা অর্থ স্বেচ্ছায় গৃহবন্দি। হোম কোয়ারানটিন মানে বাইরে ঘুরে বেড়িয়ে ফুর্তি করা নয়।
আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য বিধি (আইএইচআর -২০০৫)-এর আর্টিকেল ৩২ অনুসারে, যে সব দেশে নভেল করোনাভাইরাস বা (কোভিড-১৯)-এর স্থানীয় সংক্রমণ ঘটেছে সে সব দেশ থেকে যে সব যাত্রী এসেছেন এবং আসবেন (দেশি-বিদেশি যে কোনো নাগরিক), যারা দেশে শনাক্ত হওয়া কোভিড-১৯ আক্রান্ত ব্যক্তিদের সংস্পর্শে এসেছেন এবং যার অথবা যাদের কোনো শারীরিক উপসর্গ নেই, তাদের ১৪ দিন কোয়ারানটাইন পালন করা আবশ্যক।
বন্ধুদের সঙ্গে হৈ-হুল্লোড় আর আড্ডা নেই। ক্লাসে বসে ঘণ্টা পর ঘণ্টা নেই পড়াশুনা। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সব কিছু বদলে দিয়েছে। শিক্ষার্থীদের দৈনন্দিন জীবনে এনেছে ব্যাপক পরিবর্তন। তারপরও থেমে নেই জীবন। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকলেও অনেক শিক্ষার্থী অনলাইনে ক্লাসে অংশ নিচ্ছেন, পরিকল্পনা মাফিক সময়কে কাজে লাগাচ্ছেন। আবার  কাছের মানুষদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে সচেতন করে তুলছেন।
পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের চারজন শিক্ষার্থী হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা দিনগুলো নিয়ে অনুভূতি তুলে ধরেছেন প্রতিদিনের সময়ের কাছে
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী ফারহানা খানম রূপা  জানান, হোম কোয়ারেন্টাইন শব্দটাই তো মন খারাপ করে দেয়, দম বন্ধ লাগে। প্রথম প্রথম খুব কষ্ট হতো,একটুতেই রাগ উঠে যেতো। কিন্তু সবার আগে তো বেঁচে থাকতে হবে। পরিবার, প্রিয়জন,আমার দেশের প্রতিটা মানুষের কথা চিন্তা করে হলেও ঘরে থাকতে হবে।

ফারহানা খানম রূপা

সৃষ্টিকর্তাকে স্মরণ করি,আশা রাখি তিনি সব কিছু ঠিক করে দিবেন। পরিবারের সবার সাথে রোজা রাখা,নামাজ পড়া,কোরআন পাঠ। একটা ডায়েরি নিয়েছি, নিজের পছন্দের কবিতাগুলো লিখে রাখি, গল্পের বই পড়ে যে লাইনগুলো ভালো লাগে সেগুলো লিখে রাখি। গান শুনি প্রচুর,সময় করে একসাথে মুভি দেখি সবাই। একটা কঠিন সত্যি হলো,পরিবারের থেকে দূরে চলে গিয়েছিলাম। হোম কোয়ারান্টাইন আবার আমায় পরিবারে আবদ্ধ করেছে। পরিবারকে সময় দেওয়ার সবচেয়ে ভালো সময় মনে করছি।সবার ছোট ছোট গল্প শুনি,তাদের কাজে সাহায্য করি। টবে ছোট ছোট কিছু গাছ লাগিয়েছি,সেগুলোর যত্ন করি। খুব মন খারাপ হলে ছাদে গিয়ে আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকি। এভাবেই কেটে যাচ্ছে আমার দিনগুলি।
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞানের শিক্ষার্থী মালিহা হাওলাদার।  ১৭ মার্চ  বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধের পর থেকেই নিজ বাড়িতে হোম কোয়ারেন্টাইনে  রয়েছেন।

মালিহা হাওলাদার

হোম কোয়ারেন্টাইনে কেমন কাটছে, কি করছেন- জানতে চাইলে মালিহা বলেন, এরকম দুর্যোগ পরিস্থিতি আগে কখনো ফেস করিনি। এ পরিস্থিতিতে নিজেকে দায়িত্ব নিয়ে কাজ করতে হবে। আমি সেটাই করছি। পরিকল্পনা করে সময়কে কাজে লাগাচ্ছি। কিছু সময় পড়ছি। কিছু সময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে কাজে লাগিয়ে মানুষকে সচেতন করছি। করোনাভাইরাস সম্পর্কে নিজেকে সবসময় আপডেট রাখছি।
সময়টা খুব বোর যাচ্ছে। আমি চাই খুব দ্রুতই ক্লাস, প্রেজেন্টেশন, পরীক্ষা আর বন্ধুদের সাথে আড্ডায় ফিরে যেতে।
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞানের শিক্ষার্থী মিথিলা দেবনাথ ঝিলিক  বলেন, সব রুলস ফলো করে ১৭ মার্চ থেকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছি। পরিবার ও কাছের মানুষদের উৎসাহিত করছি তারা যেন হোম কোয়ারেন্টাইন সঠিকভাবে মেনে চলে। ফেসবুকে সচেতনামূলক অনেক পোস্ট দিয়েছি। ঘরে বসে সময় কাটছে টিভি দেখে আর ফেসবুকিং করে। মাঝে মাঝে একটু পড়াশুনাও করা লাগে যেহেতু বাসায় আছি। তবে এভাবে আর কতদিন যে থাকা লাগবে কে জানে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাঙ্গন,ক্লাস,বন্ধুদের আড্ডা অনেক মনে পড়ে। কবে যে আবার ঐ ব্যস্ত জীবনে ফিরতে পারবো! আর এখন ঘরে বসে শুধু প্রার্থনা করি যেন সবাই সুস্থভাবে সেই ব্যস্ত জগতে ফিরে যেতে পারে।

মিথিলা দেবনাথ ঝিলিক

করোনা ভাইরাসের প্রভাবে টানা ২৪ দিন বাসায় থেকে খুব অস্বস্থি বোধ করছি।  শরীর খুব দুর্বল হয়ে পরেছে। এখন বাইরে যাইতেও ভয় লাগে। তাই সব সময় সাবধানতা অবলম্বন করছি।

মিথিলা দেবনাথ ঝিলিক

করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পাওয়ার একমাত্র উপায় হলো বাসায় অবস্থান করা। তাই আমি মনে করি সকলের এই কঠিন সময়ে বাসায় অবস্থান করা জরুরি।

সংবাদটি আপনার সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরোও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *