1. admin@protidinershomoy.com : admin :
  2. nasimriyad24@gmail.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  3. wp-configuser@config.com : James Rollner : James Rollner
বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০৭:৫৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
ঠাকুরগাঁওয়ে দ্বিতীয় দিনে কোটা আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা ঠাকুরগাঁওয়ে স্কুল সেনসিটাইজেশন প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত রাজশাহীতে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের বিক্ষোভ ও পথসভা ঠাকুরগাঁওয়ে আওয়ামী লীগের বৃক্ষ রোপণ ও বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধন ঠাকুরগাঁওয়ে ৫শ বৃক্ষরোপন করছেন স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা এ্যাপোলো টাঙ্গাইল-৭ (মির্জাপুর) আসনের এমপি খান আহমেদ শুভর জন্মদিনে জয় হোসেনের উদ্যোগে বৃক্ষ রোপণ, খাদ্য বিতরণ, কোরআন তেলাওয়াত, দোয়া ও মিলাদ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতিবাজ সচিব মুকেশ চন্দ্র বিশ্বাস ! নিখোঁজ সোলায়মান আলীর সন্ধান চায় তার পরিবার চৌধুরী মুখলেসুর রহমানের মায়ের মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের শোক নিখোঁজ আব্দুল আওয়ালের সন্ধান চায় তার পরিবার !

কক্সবাজারের উখিয়ার কৃষকের মুখে হাসি নেই আর

সংবাদ দাতার নাম
  • সময় : শনিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২০
  • ৯৩২ জন পড়েছেন

শাহেদ হোসাইন মুবিন, কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধিঃ

উখিয়ায় প্রত্যেক বছর কৃষকের মুখে হাসি থাকলেও এই বছর নেই সেই হাসি আর পাকা ধানে ধরছে মড়ক পোকা।একদম কাটার পূর্ব মূহুর্তে। বেশ ভালই ফলন হয়েছিল। কিন্তু শেষ মুহূর্তে এমন কেন হল । কৃষকের মুখে হাসিটাই কেড়ে নিলো ধান চাষ দেখতে গিয়ে তাঁরা কপালে হাত দিয়ে বাড়ি ফিরছেন ।

জানা যায় কৃষিকে এগিয়ে দিতে সংশ্লিষ্ট দপ্তর ৫ ইউনি য়নকে ১৫ ব্লকে ভাগ করে।যাতে বর্তমানে রয়েছে ৮ জন উপসহকারী।এসরকারের আমলে ফলন ও বারবার ভাল হয়েছিল।কিন্তু একশ্রেণীর অতি লোভী কৃষক দাপ্তরিক নির্দেশনা ও পরামর্শকে অগ্রাহ্য করে একসময় বেশী ফলন হত ২৮ নং ধান যা বর্তমান পরিবেশ বান্ধব নয় তা রোপণ করেছে। ফলে নেক ব্লাষ্ট রোগের প্রকোপে পাকা ধানে মড়ক লেগেছে।

উপসহ কারী কৃষিকর্মকর্তা মোসতাক আহমদ জানান বতর্মানে ৫৫,৫৮,৬২,৬৩,৬৭ একজন বিড়ি ধান পরিবেশ বান্ধব হওয়ায় নিরাপদ ফলন হচ্ছে।তিনি জানান রত্নাপালং ইউনিয়নের ৩ ব্লকে বর্তমানে ৮৫০ হেঃ চাষাবাদ হয়েছে।তৎমধ্যে ৩/৪ হেক্টরের কাছাকাছি মড়ক লেগেছে যা দুঃখ জনক।
কৃষক আব্দুর রশিদ জানান ধান চাষ করে স্বাবলম্বী হওয়া দূরের কথা ধান কাটার টাকা পাব কিনা সন্দেহ যে‌ ধানে খরচ করলাম একলক্ষ টাকা সেখানে মনে হয় ১০,০০০/= হাজার টাকা ও পাবো না ।
আজকে এখানেই সমাপ্তি ঘোষণা করলাম আর জীবনেও ২৮ নং ধান চাষ করব না।

অপরদিকে রাজা পালং ইউনিয়নের কৃষক মোঃ হোসেন জানিয়েছেন রাজা পালং খয়রাতি সহ ১৩পাড়ায় পাকা ধানে মড়ক লেগে প্রায় ৩হেঃ মত জমির ৩০ জন চাষা ১ মুট ধান ও পাবেনা ফলে ঐ পরিবার গুলো সর্বশান্ত হবে তার দাবী ভূল করলে ও দেশের লোক যেহেতু সরকারের আর্থিক সহযোগিতা কামনা করেছেন।

সংবাদটি আপনার সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরোও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিশেষ সংখ্যা

You cannot copy content of this page

%d bloggers like this: