1. admin@protidinershomoy.com : admin :
  2. nasimriyad24@gmail.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৪৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম
নাগরপুরে পূজা উদযাপন পরিষদের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ সম্ভাবনা ও সুযোগে পরিপূর্ণ একটি দেশ: জেনেভায় ভূমিমন্ত্রী ১৫ দফা দাবি মেনে নেওয়াই কাভার্ডভ্যান-ট্রাক মালিক-শ্রমিকদের ধর্মঘট প্রত্যাহার নাগরপুরে মাসকলাই বীজ ও সার বিতরণ দূর্গা পুজার শুভেচ্ছা হিসাবে ভারতে প্রথম চালানে ২৩.১৫ মেট্রিক টন ইলিশ রপ্তানি ঠাকুরগাঁও বালিয়াতে ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে চাষীদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ উদ্বোধন। নড়াইলে হত্যা মামলার প্রধান আসামি ইউপি চেয়ারম্যানসহ গ্রেফতার ৩ যুক্তরাষ্ট্র আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় এস, এম, গোলাম রব্বানী চৌধুরী জাতিসংঘের এসডিজি অগ্রগতি পুরস্কার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অর্জন করায় শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন মোঃ ইদ্রিস ফরাজী

প্রতিবন্ধী সাঈম এখন আর কারো বোঝা নয়

সংবাদ দাতার নাম
  • সময় : শুক্রবার, ১৯ জুন, ২০২০
  • ১৮১ জন পড়েছেন

এম.আবদুল্লাহ সরকার- রায়গঞ্জ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি

প্রতিবন্ধী সাঈম (১৮)। রায়গঞ্জ পৌরসভা সাইফুল ইসলামের প্রথম পুত্র সে। জন্মগতভাবেই প্রতিবন্ধী হয়ে জন্মগ্রহণ করা সাঈমকে নিয়ে বড়ই চিন্তিত ছিল তার পিতা মাতা।
শরীরের সকল অঙ্গ প্রতঙ্গ ঠিক থাকলেও ঠিক ছিল না তার দুটি পা। পায়ের উপরের অংশ ভালো থাকলেও নিচের দুইটি অংশ ছিল খুবই অকেজো। অন্যের সাহায্য ছাড়া সাইম একচুলও হাঁটতে পারে না। স্থানীয় পৌরসভা থেকে পাওয়া একটি হুইল চেয়ার তার চলার একমাত্র সঙ্গী।

একটা সময় সাঈমকে ভর্তি করে দেওয়া হয় স্থানীয় একটি মাদ্রাসায়। নিজে নিজে চলতে পারে না বলে সেখানে পড়া হয়নি। পরে স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি করে দেন পিতা সাইফুল ইসলাম।
সেখানেও বেশি পড়া হয়নি তার।
এর মধ্য দারিদ্র্যতার সাথে পাল্লা দিয়ে সাইফুলের ঘরে পর পর চার সন্তান জন্ম নেয়। ২ ছেলে ২ মেয়ের মধ্য সাঈম প্রতিবন্ধী হওয়ায় সকলের দৃষ্টি ছিল ওর প্রতি।

বাবা সাইফুল এবং ছোট ছেলে নাইমের সহযোগিতায় সাইম এখন পুরোদস্তুর একজন মুদি ব্যবসায়ী। ভাই ভাই স্টোর নামে তার দোকানটি এখন রায়গঞ্জ পৌরসভার মূল কেন্দ্র ধানগড়া বাজারের মধ্যে অবস্থিত। সাইমকে তার বাবা এবং ছোট ভাই নাঈম সহযোগিতা করে। নাঈম একজন কাচামাল ব্যবসায়ী।

সাঈম সকালে ঘুম থেকে উঠে হুইল চেয়ারে বসে অন্যের সহযোগিতায় এসে দোকানের শাটার খুলে বসে পড়ে দোকানে। চলে বেচা কেনা।
হাতের নাগালেই প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদী সাজিয়ে রেখেছে সে। দোকানে প্রয়োজনীয় সব ধরনের মালামাল আছে। প্রতিদিন ৫/৬ হাজার টাকা বেচা কেনা হয়। মালামাল খরিদের জন্য তার বাবা তাকে সাহায্য করে আসছে।

সাঈম এখন কারো বোঝা নয়। সে এখন ব্যবসার মাঝেই নিজের ভবিষ্যতের ঠিকানা খুজে পেয়েছে।

সাঈমের সাথে কথা বলে জানা যায়, বয়স বাড়ার সাথে সাথে একটা সময় হতাশ হয়ে পড়েছিল সে। কিন্তু সময় এবং জীবনের প্রয়োজনে তার বাবা এবং ছোটভাই মিলে পৌর শহরের মধ্য পৌর মার্কেটের এক ঘর ভাড়া নিয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটি চালু হলে সেই নিরাশা কেটে যায় তার । এখন তার মনে অনেক সুখ। প্রতিদিনের বেচাকেনায় তার স্বপ্নের ডালপালাও বাড়ছে বলে জানান প্রতিবন্ধী সাঈম।

তার বাবা সাইফুল ইসলাম বলেন, আল্লাহর ইচৃছা হয়েছে যেমন আমাকে দিয়েছেনও তেমন। আমি খুশি। সাঈম আমার বড় সন্তান। ওকে কিছু করে দিতে পেরেছি এটাতেই আমি তৃপ্তি পাই।

 

সংবাদটি আপনার সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরোও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিশেষ সংখ্যা

You cannot copy content of this page