1. admin@protidinershomoy.com : admin :
  2. protidinershomoy@gmail.com : Showdip : Meherabul Islam সৌদিপ
  3. mamunshohag7300@gmail.com : মামুন সোহাগ : মামুন সোহাগ
  4. nasimriyad24@gmail.com : বার্তা সম্পাদক : বার্তা সম্পাদক
মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ১০:২৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম
নাগরপুরে যৌন হয়রানি ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে প্রধান শিক্ষক বরখাস্ত ঠাকুরগাঁওয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে বৃদ্ধা মহিলা আত্মহত্যা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে ঠাকুরগাঁওয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ  আধুনিক পদ্ধতিতে ঢেঁকির মাধ্যমে চাল প্রস্তুত করছেন ঠাকুরগাঁওয়ের ওমর ফারুক রামগঞ্জের সন্তান কামরুজ্জামান শুভ বাংলাদেশ আ.লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক কেন্দ্রীয় উপ কমিটির সদস্য নির্বাচিত বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার জন্মদিন উপলক্ষে নাগরপুরে কেক কাটা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত নড়াইলে প্রথম নারী পুলিশ কর্মকর্তার যোগদান নড়াইলের নব নির্বাচিত পৌর মেয়র আঞ্জুমান আরার দায়িত্ব গ্রহন মানবতার সেবার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত জাপান আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জি. মোঃ জসীম উদ্দিন নাগরপুরে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তৃতীয় শ্রেণি কর্মচারী পরিষদের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন

প্রতিবন্ধী সাঈম এখন আর কারো বোঝা নয়

সংবাদ দাতার নাম
  • সময় : শুক্রবার, ১৯ জুন, ২০২০
  • ১৬১ জন পড়েছেন

এম.আবদুল্লাহ সরকার- রায়গঞ্জ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি

প্রতিবন্ধী সাঈম (১৮)। রায়গঞ্জ পৌরসভা সাইফুল ইসলামের প্রথম পুত্র সে। জন্মগতভাবেই প্রতিবন্ধী হয়ে জন্মগ্রহণ করা সাঈমকে নিয়ে বড়ই চিন্তিত ছিল তার পিতা মাতা।
শরীরের সকল অঙ্গ প্রতঙ্গ ঠিক থাকলেও ঠিক ছিল না তার দুটি পা। পায়ের উপরের অংশ ভালো থাকলেও নিচের দুইটি অংশ ছিল খুবই অকেজো। অন্যের সাহায্য ছাড়া সাইম একচুলও হাঁটতে পারে না। স্থানীয় পৌরসভা থেকে পাওয়া একটি হুইল চেয়ার তার চলার একমাত্র সঙ্গী।

একটা সময় সাঈমকে ভর্তি করে দেওয়া হয় স্থানীয় একটি মাদ্রাসায়। নিজে নিজে চলতে পারে না বলে সেখানে পড়া হয়নি। পরে স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি করে দেন পিতা সাইফুল ইসলাম।
সেখানেও বেশি পড়া হয়নি তার।
এর মধ্য দারিদ্র্যতার সাথে পাল্লা দিয়ে সাইফুলের ঘরে পর পর চার সন্তান জন্ম নেয়। ২ ছেলে ২ মেয়ের মধ্য সাঈম প্রতিবন্ধী হওয়ায় সকলের দৃষ্টি ছিল ওর প্রতি।

বাবা সাইফুল এবং ছোট ছেলে নাইমের সহযোগিতায় সাইম এখন পুরোদস্তুর একজন মুদি ব্যবসায়ী। ভাই ভাই স্টোর নামে তার দোকানটি এখন রায়গঞ্জ পৌরসভার মূল কেন্দ্র ধানগড়া বাজারের মধ্যে অবস্থিত। সাইমকে তার বাবা এবং ছোট ভাই নাঈম সহযোগিতা করে। নাঈম একজন কাচামাল ব্যবসায়ী।

সাঈম সকালে ঘুম থেকে উঠে হুইল চেয়ারে বসে অন্যের সহযোগিতায় এসে দোকানের শাটার খুলে বসে পড়ে দোকানে। চলে বেচা কেনা।
হাতের নাগালেই প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদী সাজিয়ে রেখেছে সে। দোকানে প্রয়োজনীয় সব ধরনের মালামাল আছে। প্রতিদিন ৫/৬ হাজার টাকা বেচা কেনা হয়। মালামাল খরিদের জন্য তার বাবা তাকে সাহায্য করে আসছে।

সাঈম এখন কারো বোঝা নয়। সে এখন ব্যবসার মাঝেই নিজের ভবিষ্যতের ঠিকানা খুজে পেয়েছে।

সাঈমের সাথে কথা বলে জানা যায়, বয়স বাড়ার সাথে সাথে একটা সময় হতাশ হয়ে পড়েছিল সে। কিন্তু সময় এবং জীবনের প্রয়োজনে তার বাবা এবং ছোটভাই মিলে পৌর শহরের মধ্য পৌর মার্কেটের এক ঘর ভাড়া নিয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটি চালু হলে সেই নিরাশা কেটে যায় তার । এখন তার মনে অনেক সুখ। প্রতিদিনের বেচাকেনায় তার স্বপ্নের ডালপালাও বাড়ছে বলে জানান প্রতিবন্ধী সাঈম।

তার বাবা সাইফুল ইসলাম বলেন, আল্লাহর ইচৃছা হয়েছে যেমন আমাকে দিয়েছেনও তেমন। আমি খুশি। সাঈম আমার বড় সন্তান। ওকে কিছু করে দিতে পেরেছি এটাতেই আমি তৃপ্তি পাই।

 

সংবাদটি আপনার সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরোও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *