1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৩২ অপরাহ্ন
শিরোনাম
টিউলিপ সিদ্দিক শ্যাডো ইকোনমিক সেক্রেটারি হিসাবে দায়িত্ব পাওয়ায় হাসান ইকবালের শুভেচ্ছা  ভাঙ্গায় নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যানকে সংবর্ধনা মহান বিজয় দিবস ও মুজিব বর্ষ উপলক্ষে ‘গ্লোবাল লিডারশিপ পিস অ্যাওয়ার্ড ২০২১’ পেলেন ইঞ্জিনিয়ার মো: জসীম উদ্দিন প্রধান নব নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যানের সংসদ সদস্যের পিতার সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পন জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের মৃত্যুতে হাসান ইকবালের গভীর শোক প্রকাশ নড়াইলের ভবানীপুর গ্রামে হত্যা মামলায় একজনের ফাঁসির আদেশ, ৩জনের যাবজ্জীবন দিয়েছেন আদালত নাগরপুরে ইউপি চেয়ারম্যান নৌকা ৬,বিদ্রোহী ২ ও স্বতন্ত্র ৩ হেফাজত মহাসচিব এর মৃত্যুতে শায়খুল হাদীস আল্লামা সিরাজুল ইসলাম পীর সাহেব নেত্রকোণার শোক নড়াইলে ১০ ইউপিতেই স্বতন্ত্রের জয়, নৌকা দুই ইতালিতে কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত অমান্য করে আওয়ামী লীগের সম্মেলন,বহিস্কার হবেন অনেকে

ঋণ করে সংসার চালাচ্ছেন কুদ্দুস বয়াতি

সংবাদ দাতার নাম
  • সময় : রবিবার, ২৬ এপ্রিল, ২০২০
  • ১৮৬ জন পড়েছেন

বিনোদন প্রতিবেদকঃ

দেশের জনপ্রিয় লোকসঙ্গীত শিল্পী কুদ্দুস বয়াতি। প্রয়াত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ কর্তৃক নির্মিত বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষার একটি বিজ্ঞাপনে অংশ নেয়ার মাধ্যমে পরিচিতি পান তিনি। এরপর অসংখ্য গানের মাধ্যমে শ্রোতাদের মনে জায়গা করে নিয়েছেন। লোকসঙ্গীতের এই মহাতারকা বর্তমানে ভালো নেই। করোনার কারণে সংকটের মধ্যে সময় পার করছেন।

রবিবার বিকেলে মুঠোফোনে এই প্রতিবেদককে কুদ্দুস বয়াতি জানান, ঋণ করে তার সংসার চালাতে হচ্ছে। করুণ এই সময়ে কেউ তার খোঁজও নেইনি।

দুঃখের সুরে তিনি বলেন, ‘খুব অসুবিধার মধ্যে আছি। ঋণ করে সংসার চালাতে হচ্ছে। আজকে ২০০ টাকা ছিল। ঐটা দিয়ে বাজার করেছি। কালকে কীভাবে বাজার করবো জানি না। আবার হয়তো কারও কাছ থেকে চাইতে হবে। এভাবে আর কয়দিন চলতে পারবো জানি না।’

২০১৮ সালের নভেম্বর মাসে প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে ২০ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র অনুদান পেয়েছিলেন কুদ্দুস বয়াতি। তিনি বলেন, ‘তিন মাস পর পর সাড়ে ১৭ হাজার টাকা পাই। করোনার আগে সেই টাকা তুলেছি। এখন টাকা শেষ, তাই ধার করতে হচ্ছে ।’

এছাড়া, গত বছর গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন কুদ্দুস বয়াতি। ফুসফুসে সমস্যা ছিল তার । পরবর্তীতিতে উন্নত চিকিৎসা নিতে তাকে ভারত যেতে হয়। চিকিৎসায় অনেক টাকা খরচও হয় উল্লেখ করে কুদ্দুস বয়াতি বলেন, ‘চিকিৎসার জন্য অনেকের কাছে ধার করেছি। শোধও করেছি। আল্লাহর রহমতে এখন মোটামোটি সুস্থ। সবকিছু ভালো চলছিল। কিন্তু করোনার কারণে আবার ঝামেলার মধ্যে পড়ে গেলাম।’

বর্তমানে পরিবার নিয়ে দিয়াবাড়িতে আছেন কুদ্দুস বয়াতি। তার পরিবারে ৬ জন সদস্য। তার বৃদ্ধ মাও তাদের সঙ্গে থাকেন।

উল্লেখ্য, শারীরিক অসুস্থতা কাটিয়ে প্রায় তিন বছর পর কুদ্দুস বয়াতি সর্বশেষ করোনা সচেতনতায় ‘জাইনা চলেন, মাইনা চলেন’ শিরোনামের গান করেন। গানটি মানুষকে সচেতন করতে বেশ ভূমিকা রাখছে।

সংবাদটি আপনার সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরোও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিশেষ সংখ্যা