1. admin@protidinershomoy.com : admin :
  2. nasimriyad24@gmail.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম
নাগরপুরে যমুনার ভাঙন পরিদর্শনে পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের সিনিয়র সচিব প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিনে হাসান ইকবালের শুভেচ্ছা নাগরপুরে পূজা উদযাপন পরিষদের নতুন কমিটি নাগরপুরে পূজা উদযাপন পরিষদের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ সম্ভাবনা ও সুযোগে পরিপূর্ণ একটি দেশ: জেনেভায় ভূমিমন্ত্রী ১৫ দফা দাবি মেনে নেওয়াই কাভার্ডভ্যান-ট্রাক মালিক-শ্রমিকদের ধর্মঘট প্রত্যাহার নাগরপুরে মাসকলাই বীজ ও সার বিতরণ দূর্গা পুজার শুভেচ্ছা হিসাবে ভারতে প্রথম চালানে ২৩.১৫ মেট্রিক টন ইলিশ রপ্তানি ঠাকুরগাঁও বালিয়াতে ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে চাষীদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ উদ্বোধন।

বেলকুচিতে সরকারী সহায়তা টাকা নিতে নতুন সিম দিয়ে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগ

সবুজ সরকার স্টাফ রিপোর্টার
  • সময় : রবিবার, ১২ জুলাই, ২০২০
  • ৫০৫ জন পড়েছেন

সবুজ সরকার বেলকুচি (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে করোনাকালীন সময়ে সরকারী বিশেষ সহায়তা নিতে নতুন সিমকার্ড কিনতে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগ তুলেছে সুবিধাভোগীরা।

বেলকুচি উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেনের যোগসাজশে তার বাড়ীতে মোবাইলের সিমকার্ডের নামে ২০০ থেকে ২৫০ টাকা করে আদায় করা হয়। ঐ ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের অন্তর্ভুক্ত সুবিধাভোগীদের কাছ থেকে নতুন সিমকার্ড নেওয়ার নামে এই অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

সুবিধাভোগীরা জানায়, আমাদের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী করনা কালীন কর্মহীনদের মাঝে সরকারী সহায়তার টাকা আমাদের মোবাইলে আসবে। তাই আমরা মোবাইলের নতুন সিমকার্ড কিনছি। বাহিরে সিমকার্ড বিক্রি হয় ১শ ১০ টাকা কিন্তু আমাদের প্যানেল চেয়ারম্যানের বাড়িতে এসে ঐ সিমকার্ড ২শ টাকা করে কিনতে হচ্ছে। এতে আমাদের অতিরিক্ত ৯০ টাকা যাচ্ছে। এই টাকাটা কে বা কাহারা নিবে কিছুই জানিনা।

দৌলতপুর ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আলতাব হোসেন এই প্রতিবেদকের কাছে অতিরিক্ত টাকার নেয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন, সরকারী সহায়তার তালিকায় ২৭০ জনের মোবাইল নম্বর ভুল ছিলো। তাই যার যার নামের নতুন সিমকার্ড কিন্তে হচ্ছে। আমার বাড়ীতে সিমকার্ড অফিসের লোক এসে ২০০ টাকা নিয়ে সিমকার্ড দিচ্ছে। এটা আমার করার কিছুই নেই।

বেলকুচি উপজেলা নির্বাহী অফিসার আনিছুর রহমান এই প্রতিবেদককে বলেন, অতিরিক্ত টাকা নেয়ার সুযোগ নেই। অতিরিক্ত টাকা নেয়ার প্রমান পাওয়া যায়, তাহলে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

সংবাদটি আপনার সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার দিন

এই ক্যাটাগরীর আরোও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিশেষ সংখ্যা

You cannot copy content of this page